বিএনপি জামাতের নৈরাজ্য ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে, ওদের আর কোন অবস্থাতেই ছাড় দেয়া হবে না


বিএনপি জামাতের নৈরাজ্য ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে, ওদের আর কোন অবস্থাতেই ছাড় দেয়া হবে না – জননেত্রী শেখ হাসিনার ৩১ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব সুলতান মাহমুদ শরীফ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বিশ্ব শান্তির দূত, গনতন্ত্রের মানস কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার ৩১ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন উপলক্ষে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের আলোচনা সভার সভা…পতিত্ব করেন ও প্রধান আলোচক হিসেবে ৩১ বৎসরের পুরনো সৃতি চারণ করেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সভাপতি, বীর মুক্তিযুদ্ধা জনাব সুলতান মাহমুদ শরীফ। সভা পরিচালনা করেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক জনাব আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী। ১৯৮১ সালের ১৭ই মে জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে বাংলাদেশের গনতন্ত্র পুনঃ-প্রতিষ্ঠার আন্দলনের পুনঃসুচনা হয়। দীর্ঘ ছয় বৎসর প্রবাস জীবনের পর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রধান হিসেবে শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসেন। শুরু হয় খুনি জিয়ার স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে আমাদের দীর্ঘ আন্দলন। আজ শেখ হাসিনার নেতৃতে বাংলাদেশ যখন প্রগতির পথে এগুচ্ছে, অর্থনীতিক মুক্তিতে সারা জাতি উদ্ভাসিত তখনি বাংলাদেশকে অকার্যকর করার জন্য খালেদা জিয়ার নেতৃতে স্বৈরাচারী কায়দায় বাংলাদেশে অরাজাগতার পায়তারা করছে, সারা দেশে তাণ্ডবলীলা চালাচ্ছে। আমরা প্রবাস থেকে জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ নিয়ে গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দিতে কাজ করছি। আমারা আজই ঢাকায় হরতালের নামে যে ঘৃণ্য তৎপরতা চলছে এবং ভাংচুর ও গনজীবনে যে নৈরাজ্য সৃষ্টির তৎপরতা চলছে তার তীব্র নিন্দা করছি।

আজকের এই দিনে বাংলার ১৬ কোটি মানুষের প্রিয় নেত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘ জীবন কামনা করি। আমরা নিশ্চিত যে বঙ্গবন্ধু কন্যা তার নেতৃতের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশীদের একটি সুখী ও সমৃদ্ধশালী দেশ উপহার দিবেন। সভাপতি তার বক্তব্বে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন এই উন্নয়নের পথে যারা বাধা দিবে, ক্রিতিম ইস্যু তৈরি করে দেশে হরতালের নামে মানুষ পুরিয়ে মারবে, জনগনের ও দেশের সম্পদ নষ্ট করবে, জনগণের সুস্থ জীবন যাত্রা ব্যাহত করবে, নিজেরা গুম হত্যা করে সরকারের উপর দোষ চাপানোর চেষ্টা করবে – তাদেরকে কোন অবস্থাতেই আর ছাড় দেয়া হবে না। কঠিন ভাবে তাদের মোকাবেলা করা হবে। বাংলার মুক্তিকামি মানুষ আর বসে থাকবে না। যারা স্বাধীনতার শত্রুদের সাথে আতাত করে যুদ্ধ অপরাধীদের বাঁচানোর জন্য দেশে অরাজাকতা করছে বীর বাঙ্গালী আগামী দিনে এর সঠিক জবাব দিবে।

অন্যান্যর মধ্যে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি জনাব সামসুদ্দিন মাষ্টার, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা মারুফ আহমেদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব সাজ্জাদ মিয়া, আব্দুল আহাদ চৌধুরী, আন্সারুল হক, এম এ করিম, মেহের নিগার চৌধুরী, আ স ম মিসবাহ, রাজিয়া রহমান, লন্ডন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি নুরুল হক লালা মিয়া, সাঃ সঃ আলতাবুর রহমান মুজাহিদ, যুবলীগের সভাপতি ফখরুল ইসলাম মধু, সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল আহমেদ খান, ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তামিম আহমেদ, কবির হোসেন খান প্রমুখ।